ঢাকা শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, ৯ মাঘ ১৪২৭

রোমাঞ্চকর টাইব্রেকার জিতে সেমিতে সাইফ

স্পোর্টস ডেস্ক
০৩ জানুয়ারি ২০২১ ১৯:০৩
আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০২১ ০৬:৫৮
রোমাঞ্চকর টাইব্রেকার জিতে সেমিতে সাইফ সংগৃহিত

ম্যাচের প্রথম ১১ মিনিটেই তিন গোল! সেই খেলার নিষ্পত্তি হলো নির্ধারিত-অতিরিক্ত সময়, টাইব্রেকার পেরিয়ে সাডেন ডেথে। ১২০ মিনিটের খেলা ২-২ গোলে অমীমাংসিত থাকার পর ফেডারেশন কাপের দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনাল গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে দু’দল একটি করে শট মিস করলে জয়ী নির্ধারণ করতে সাডেন ডেথের সহায়তা নিতে হয়। মোহামেডান তৃতীয় শট মিস করলে উজবেকিস্তানের মিডফিল্ডার সিরোজুদ্দিন রাভমাতুল্লায়েভের লক্ষ্যভেদে জয়ের উচ্ছ্বাসে মাতে সাইফ স্পোর্টিং। ৬ জানুয়ারি সেমিফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ চট্টগ্রাম আবাহনী।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে গতকাল বিকেলে ম্যাচের প্রথম মিনিটেই মোহামেডানের ফরহাদ মনার শট প্রতিহত করেন সাইফের এক ডিফেন্ডার। পরের আক্রমণ থেকে এগিয়ে যায় ২০০৯ সালে সর্বশেষ ফেডারেশন কাপের স্বাদ পাওয়া দলটি। হাবিবুর রহমান সোহাগের কর্নারে বুরকিনা ফাসোর মনিজর কৌলিদিয়াতির হেড পাস থেকে হেডেই জাল খুঁজে নেন আতিকুজ্জামান (১-০)। তবে ৭ মিনিটেই সমতায় ফেরে সাইফ। ফয়সাল আহমেদ ফাহিমের কর্নারে নাইজেরিয়ান ডিফেন্ডার এমানুয়েল হেডে বল জালে জড়ান (১-১)। ৬ মিনিট পর এগিয়েও যায় সাইফ। তিন ডিফেন্ডারের ফাঁক গলে দারুণ শটে জাল খুঁজে নেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড ইকেচুকু কেনেথ (২-১)। গত আসরে কোয়ার্টার থেকে ছিটকে যাওয়া সাইফ আরও এগিয়ে যেতে পারত। কিন্তু ভাগ্য সহায়তা দেয়নি তাদের। ৪০ মিনিটে ফাহিমের কর্নারে আরিফুর রহমানের হেড পোস্টে লেগে ফেরে। এর কিছুক্ষণ পর সমতায় ফেরে মোহামেডান। জাফর ইকবালের জোরালো শট সাইফের গোলরক্ষক পাপ্পু হোসেন ফিস্ট করলে কর্নার পায় তারা। শাহেদ মিয়ার কর্নারে মালির ফরোয়ার্ড সুলেমান দিয়াবাতের হেডে পরাস্ত হন পাপ্পু (২-২)।

৬২ মিনিটে কেনেথের শট ফিরিয়ে মোহামেডানের ত্রাতা গোলরক্ষক বিপু। তার দৃঢ়তায় ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে নিয়ে যায় দলটি। যোগ করা সময়ে দুই ডিফেন্ডারকে ছিটকে দিয়ে গোলরক্ষকের পাশ দিয়ে জাল খুঁজে নিতে চেয়েছিলেন ওকোলি; শেষ মুহূর্তে পা বাড়িয়ে বিপু আটকান নাইজেরিয়ান মিডফিল্ডারের প্রচেষ্টা।

১০৯তম মিনিটে গোলের সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন রহিম উদ্দিন। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা এই ফরোয়ার্ড গোলরক্ষককে একা পেয়েও তার বরাবর দুর্বল শট নেন। কর্নারের বিনিময়ে ফেরান বিপু। কর্নারের পর ওকোলির শট গোললাইন থেকে ফেরান কৌলিদিয়াতি। দুই মিনিট পর কেনেথ বাইরের জাল কাঁপান। ম্যাচের ভাগ্য গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে মোহামেডানের আমিনুর রহমান সজীবের নেওয়া দ্বিতীয় শট ফিরিয়ে দেন সাইফের পাপ্পু। অন্যদিকে সাইফের চতুর্থ শটটি ক্রসবারে মেরে হতাশ করেন ইয়াসিন আরাফাত। সাডেন ডেথে মোহামেডানের কৌলিদিয়াতি, আমির হাকিম বাপ্পী লক্ষ্যভেদ করেন। আতিকুজ্জামান মারেন বাইরে। রহিম উদ্দিন, রহমত মিয়া জাল খুঁজে পাওয়ার পর উজবেকিস্তানের রাভমাতুল্লায়েভের শট আনন্দে ভাসায় সাইফ স্পোর্টিংকে।